26.4 C
Dhaka
২১ নভেম্বর, বুধবার , ২০১৮ ০৭:২৫:৩০ অপরাহ্ণ
ভয়েস বাংলা
অপরাধ চিফ এডিটর’স চয়েস প্রবাস

গায়েবি মামলায় আসামী সৌদিপ্রবাসী, তীব্র সমালোচনা

ভয়েস বাংলা প্রতিবেদক: সৌদিপ্রবাসী আরজান আলী (৪০)। দুই বছর ধরে সৌদিআরবে বসবাস করছেন।দেশে থাকা অবস্থায় বিএনপি রাজনীতির সংগে জড়িত ছিলেন।অথচ গত ৩১ অক্টোবর তাঁর বিরুদ্ধে চৌগাছা থানায় নাশকতার মামলা হয়েছে। জেলা গোয়েন্দা পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) মোশাররফ হোসেন বাদী হয়ে আরজান আলীসহ বিএনপি-জামায়াতের ৩৯ নেতাকর্মীর নামে মামলা করেন। প্রবাসে থেকে নাশকতার মামলার আসামি হওয়ার বিষয়টি নিয়ে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনা চলছে।

যদিও বাদীর দাবি, তদন্তে প্রবাসীর বিষয়টি প্রমাণিত হলে চার্জশিটে নাম বাদ যাবে।

বিএনপি নেতাদের দাবি, গায়েবি মামলা শুধু চৌগাছা থানা নয়, বাঘারপাড়ায় ১৬২ ও কোতোয়ালি থানায় ৩১ বিএনপি নেতাকর্মীর নামেও দেয়া হয়েছে।

জানা যায়, বুধ ও বৃহস্পতিবার যশোরের চৌগাছা, কোতোয়ালি ও বাঘারপাড়া থানায় তিনটি নাশকতার মামলা হয়েছে। এই মামলায় মোট ২৩২ বিএনপি-জামায়াতের নেতাকর্মীকে আসামি করা হয়েছে। এর মধ্যে চৌগাছায় ৩৯, বাঘারপাড়ায় ১৬২ ও কোতোয়ালি থানায় ৩১ আসামি রয়েছে। বুধবার যশোর জেলা গোয়েন্দা পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) মোশাররফ হোসেন বাদী হয়ে চৌগাছা থানায় ৩৯ বিএনপি-জামায়াত নেতাকর্মীর নামে মামলা করেছেন। এদের মধ্যে ৯ আসামিকে আগেই আটক করা হয়। মামলার ১৫ নম্বর আসামি চৌগাছা উপজেলার ধুলিয়ানি ইউনিয়নের ফতেপুর গ্রামের মৃত সুবহান আলীর ছেলে আরজান আলী। তাঁর সৌদিআরবের থাকার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন স্ত্রী শিখা বেগম।

সৌদিপ্রবাসীকে আসামি করার প্রসংগে জানতে চাইলে মামলার বাদী জেলা গোয়েন্দা পুলিশের উপ-পরিদর্শক মোশাররফ হোসেন বলেন, আরজান সৌদিপ্রবাসী, তদন্তে প্রমাণিত হলে তাঁর নাম বাদ পড়বে।

এদিকে বৃহস্পতিবার রাতে কোতোয়ালি থানায় এসআই হায়াৎ মাহমুদ বাদী হয়ে বিএনপির ৩১ নেতাকর্মীর নামে নাশকতার মামলা করেছেন। আসামিরা হলেন- বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট সৈয়দ সাবেরুল হক, জেলা যুবদলের সভাপতি আনসারুল হক রানা ও সাধারণ সম্পাদক এম তমাল আহমেদসহ ৩১ জন।

এছাড়াও বুধবার বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও বাঘারপাড়া উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক ইঞ্জিনিয়ার টিএস আইয়ূব, পৌর বিএনপির আহ্বায়ক আবদুল হাই মনা, উপজেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক শামসুর রহমানসহ ১৬২ নেতাকর্মীর নাম উল্লেখ করে মামলা করেছে বাঘারপাড়া থানা পুলিশ। এসআই আবদুল মতিন বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেন। এর আগে উপজেলার বিভিন্ন গ্রাম থেকে ১০ নেতাকর্মীকে আটক করে পুলিশ।

এ প্রসংগে যশোর জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট সাবেরুল হক সাবু বলেন, রাজনৈতিক প্রতিহিংসার বশবর্তী হয়ে পুলিশ গায়েবি মামলা দিয়ে বিএনপির নেতাকর্মীদের হয়রানি করছে। মূলত নির্বাচনী মাঠ থেকে আমাদের নেতাকর্মীদের দূরে রাখতেই গায়েবি মামলায় আসামি করা হয়েছে। সংলাপে প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণার পরও পুলিশ বেপরোয়া। মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানাচ্ছি।

# ভয়েস বাংলা/ এটি

সম্পর্কিত

সৌদিআরবে সড়ক দুর্ঘটনায় এক বাংলাদেশি নিহত

ডেস্ক রিপোর্ট

ইয়াবাসহ সোহাগ পরিবহনের চালক আটক

ডেস্ক রিপোর্ট

মালয়েশিয়া প্রবাসীদের টাকা পাঠাতে ‘ইউপে ফেলমো’ অ্যাপ

ডেস্ক রিপোর্ট

মাদ্রিদে ঢাকা অ্যাসোসিয়েশনের আহ্বায়ক কমিটি গঠন

ডেস্ক রিপোর্ট

নিউইয়র্কে ৬ অভিযোগে অভিযুক্ত বাংলাদেশি আকায়েদ

ডেস্ক রিপোর্ট

অধরাই থেকে গেলো দ. আফ্রিকাপ্রবাসী দিদারুলের স্বপ্ন

ডেস্ক রিপোর্ট

মতামত