27 C
Dhaka
১১ ডিসেম্বর, মঙ্গলবার , ২০১৮ ০৪:০০:২৪ অপরাহ্ণ
ভয়েস বাংলা
চিফ এডিটর’স চয়েস প্রচ্ছদ প্রবাস হাইলাইটস

প্রবাসী বাংলাদেশিদের জন্য মৃত্যুপুরী দক্ষিণ আফ্রিকা

ভয়েস বাংলা প্রতিবেদক: প্রাকৃতিক সম্পদে ভরপুর মধ্য আয়ের অন্যতম দেশ দক্ষিণ আফ্রিকা। দেশটির পর্যটন খাতে, ছোট-খাটো স্টেশনারি এবং সুপারশপে পুঁজি বিনিয়োগ করে লাভবান হওয়ায় গত এক দশকে সেখানে প্রবাসী বাংলাদেশিদের ঢল বেড়েছে। কিন্তু এসব ব্যবসা খাতে যেন স্থানীয় দুর্বৃত্তদের কূ-নজর পড়েছে। প্রবাসী বাংলাদেশিদের দোকানে বা ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে আচমকা হামলা, অগ্নিসংযোগ, দোকানপাট গুড়িয়ে দেওয়ার মতো ঘটনা ঘটছে যখন-তখন।

দুর্বৃত্তদের বাধা দিতে গেলেই ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে কিংবা গুলি করে দোকান মালিককে হত্যা করা মামুলি ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে। সাম্প্রতিক এক অনুসন্ধানে দেখা গেছে, প্রতি বছর দক্ষিণ আফ্রিকায় প্রায় ২০০ বাংলাদেশি এমন নির্মম হত্যাকান্ডের শিকার হচ্ছেন। শুধু গত তিন সপ্তাহেই বিভিন্ন ঘটনায় মৃত্যু হয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকাপ্রবাসী ২১ জন বাংলাদেশির৷

চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে এ পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে ১০৯ জন বাংলাদেশির। এর বাইরে অপহরণ করে মুক্তিপণ আদায়ের ঘটনা তো রয়েছেই। জানা গেছে, গত এক সপ্তাহে আফ্রিকার লানেসিয়া থেকে ৩ জন বাংলাদেশিকে অপহরণ করেছে দুর্বৃত্তরা। অথচ এসব ঘটনা এবং হত্যাকাণ্ডকে চোর-ডাকাতের গুলিতে নিহত বলে চালিয়ে দিচ্ছে স্থানীয় প্রশাসন।

স্থানীয় পুলিশ বলছে, হত্যাকান্ডের পর পুলিশের পক্ষে একটি ইউ ডি মামলা ছাড়া ভিকটিমের পক্ষে কোনো মামলা হয় না। তাই কী কারণে হত্যাকান্ডটি সংঘটিত হয়েছে তা তদন্তের বাইরেই রয়ে যায়। অধিকাংশ ক্ষেত্রে দেখা গেছে, হত্যাকান্ডের শিকার হওয়া ব্যক্তির কোনো আত্নীয়-স্বজন দেশটিতে না থাকায় তেমন কোনো বিচারও পাওয়া যায় না। স্থানীয় বাংলাদেশ কমিউনিটির লোকজনও এসব ঘটনা নিয়ে বেশিদূর এগোতে চান না।

অথচ অন্য কোনো দেশের নাগরিক দক্ষিণ আফ্রিকায় হত্যাকাণ্ডের শিকার হলে ঐ দেশের কমিউনিটি নেতারা বাদী হয়ে সংশ্লিষ্ট থানায় অজ্ঞাত আসামীর নামে মামলা দায়ের করেন এবং মামলার চূড়ান্ত রায় না হওয়া পর্যন্ত ঐ মামলার পেছনে লেগে থাকেন। এমনকি সংশ্লিষ্ট দেশের দূতাবাস কিংবা হাইকমিশন এসব মামলা পরিচালনা ও তদারকির জন্য নিজস্ব আইনজীবী পর্যন্ত নিয়োগ করে থাকে।

পক্ষান্তরে দক্ষিণ আফ্রিকায় কোনো বাংলাদেশি নাগরিক হত্যাকাণ্ডের শিকার হলে তা নিয়ে বাংলাদেশ হাইকমিশন এবং দেশটিতে সক্রিয় বাংলাদেশি কমিউনিটির বিভিন্ন সংগঠনকে খুব একটা সরব হতে দেখা যায় না। অথচ সংশ্লিষ্টদের সক্রিয় ভূমিকা গ্রহণের বিকল্প নেই বলে মনে করেন দক্ষিণ আফ্রিকাপ্রবাসী অসহায় বাংলাদেশিরা। তাঁরা জানান, প্রায় দেড় লাখ প্রবাসী বাংলাদেশির এই দেশে এমন নির্মম হত্যাকাণ্ড বৃদ্ধিতে সবাই উদ্বিগ্ন। তাই বাংলাদেশ সরকারের যথাযথ কূটনৈতিক তৎপরতার মাধ্যমে দক্ষিণ আফ্রিকা সরকার কর্তৃক এসব ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচারের ব্যবস্থা করার দাবি জানিয়েছেন দক্ষিণ আফ্রিকাপ্রবাসী বাংলাদেশিরা। নয়তো এই মৃত্যুপুরী কতো বাঙালি মায়ের কোল শূন্য করবে- তার ইয়ত্তা নেই।

#ভয়েস বাংলা/ এডি

সম্পর্কিত

বরিশালে বিএনপি কর্মীদের হয়রানি না করতে হাইকোর্ট-এর নির্দেশ

ডেস্ক রিপোর্ট

বাহরাইনে বাংলাদেশি পণ্যের ব্যাপক চাহিদা

ডেস্ক রিপোর্ট

খালেদা জিয়ার আসনে বিকল্প ফখরুল

ডেস্ক রিপোর্ট

রাজধানীতে ফিরতে শুরু করেছে লাখো মানুষ

ডেস্ক রিপোর্ট

কেন অভিবাসীদের প্রথম পছন্দ জার্মানি

ডেস্ক রিপোর্ট

ঝুঁকির মুখে সাড়ে ১০ কোটি ভোটারের তথ্য

ডেস্ক রিপোর্ট

মতামত