আন্তর্জাতিক ডেস্ক: যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসকারী অবৈধ নাগরিকদের ফিরিয়ে নিতে মায়ানমার ও লাওসকে বারবার আহবান জানানোর পরও, তাতে সাড়া না দেয়ায় ভিসা নিষেধাজ্ঞা দিলো যুক্তরাষ্ট্র।

মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সংগে হোমল্যান্ড সিকিউরিটি বিভাগ ১১ জুলাই (মঙ্গলবার) যৌথভাবে এ সংক্রান্ত বিবৃতি প্রকাশ করেছে। এতে বলা হয়, যুক্তরাষ্ট্র থেকে নিজেদের দেশের নাগরিকদের ফেরত নিতে বলা হলেও তা বাস্তবায়নে দায়িত্বজ্ঞানহীনভাবে দেরি করায় মায়ানমার ও লাওসের ওপর ভিসা নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হলো।

এছাড়া, মায়ানমার ও লাওসে মার্কিন কনস্যুলার অফিসারদের সুনির্দিষ্ট কিছু ক্যাটাগরিতে ভিসার আবেদনের ওপর কড়াকড়ি আরোপের নির্দেশ দিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও। এ নিষেধাজ্ঞার আওতা আরো বাড়ানো হতে পারে।

এরই মধ্যে ইয়াঙ্গুনে যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাস বি-১ ও বি-২ ক্যাটাগরির সব নন-ইমিগ্র্যান্ট ভিসা দেয়া বন্ধ করেছে। এ তালিকায় আছে মায়ানমারের শ্রম, অভিবাসন ও পপুলেশন এবং স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মহাপরিচালক পর্যায় এবং এর উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তা ও তাদের পরিবারের সদস্যরা।

প্রসংগত, মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প অবৈধ অভিবাসীদের বিরুদ্ধে বরাবরই কঠোর হুঁশিয়ারি দিয়ে আসছেন । তিনি আগেই বলেছিলেন, যেসব দেশ তাদের নাগরিকদের যুক্তরাষ্ট্র থেকে ফেরত নিতে অস্বীকৃতি জানাবে তাদের সাজা দেয়া হবে। এরই ধারাবাহিকতায় গত বছর তিনি এক নির্বাহী আদেশে স্বাক্ষর করেন। তাতে পররাষ্ট্র ও হোমল্যান্ড সিকিউরিটি বিভাগকে সংশ্লিষ্ট দেশ থেকে আবেদন করা ভিসা স্থগিত করার কথা বলা হয়েছে।