আসন ভাগাভাগি নাকি বিশ দলীয় জোটে ভাঙ্গনের উসকানি!

117

মোস্তফা ফিরোজ: বিশ দলীয় জোটের শরীকরা এখনই বিএনপির সাথে আসন ভাগাভাগির ফয়সালা সেরে নিতে চায়। এই বিষয়ে এলডিপির নেতা কর্নেল অলি আহমদ(অব:) ও সাহাদত হোসেন সেলিম স্পষ্ট করে বলে দিয়েছেন। তারা জোটের শরীক হিসাবে সম্মান ও মর্যাদা চান। এটা ঠিক যে বড় দলগুলো আশ্বাস দেয়। কিন্তু চূড়ান্ত পর্যায়ে গিয়ে কথা রাখে না। এখন খালেদা জিয়া কারাগারে। বিএনপির বাইরে থাকা নেতারা দৌড়ের উপরে আছে। তাতে কি? নির্বাচনতো আর বসে থাকবে না? এই অবস্থায় আসন নিয়ে জোটের শরীকরা দর কষাকষির ক্ষেত্রে সুবিধাজনক অবস্থায় আছেন। এখনই চাপ দেয়ার মোক্ষম সময়। এতে আসন সংখ্যা বাড়িয়ে নিতে সুবিধা হবে। সম্ভবত: এই চিন্তা থেকেই জোটের শরীকরা আসন নিয়ে কথা বলছে। কিন্তু বিএনপির জন্য বিব্রতকর হয়েছে আসন ভাগাভাগির আলোচনায় কে সিদ্ধান্ত দেবে? খালেদা জিয়া কারাগারে। তারেক রহমান লন্ডনে। তাদের ছাড়া আসন নিয়ে কোন আলোচনা ও সিদ্ধান্ত হবে না। সব সময় তাই হয়ে এসেছে। তাছাড়া খালেদাকে জেলে রেখে এখুনি এই আলোচনা শোভন নয়। তাই বিএনপি বলছে, খালেদা জিয়া কারা মুক্ত হলে এটা নিয়ে আলোচনা হবে। কিন্তু কবে তিনি মুক্ত হবেন আর কবে এই আলোচনা হবে, তার জন্য বসে থাকতে চায় না এলডিপিসহ কোন কোন শরীক দল।
আবার সন্দেহ করা হচ্ছে, আসন ভাগাভাগি নিয়ে জোটের ভিতরে একটা টানাপোড়ন বা ফাঁটল ধরানোর জন্য কেউ উস্কানি দিচ্ছে কিনা। এসব নিয়েও বিশ্লেষন চলছে যে, বিশ দলীয় জোটে ভাঙ্গন ধরিয়ে তাদেরকে আরো কোনঠাসা করে ফেলা হতে পারে। কোন কোন শরীক হয়তো সরকারের সাথে হাত মিলিয়ে এসব করছে।
যাই হোক, নির্বাচন যতো ঘনিয়ে আসবে রাজনীতির নানা খেলা চলতে থাকবে। আর আমরা আম জনতা রাজনীতির এসব অঙ্ক কষতে থাকবো।

লেখক: বার্তা প্রধান- বাংলাভিশন