মোস্তফা ফিরোজ: মাসকাট থেকে ৬০ কিলোমিটার দূরে সিভ শহরে ১৫ বছর আগে বাংলাদেশি আবুল কালাম মজাদার ওমানী হালুয়া বানানোর কারিগর হয়ে যান। তিনি মজাদার নানান হালুয়া তৈরি করতেন। ওমানে এই হালুয়ার খুবই কদর। সব সামাজিক অনুষ্ঠানে হালুয়া থাকবেই। ওমানীরা মিষ্টির চেয়ে হালুয়া খেতে পছন্দ করেন।

আবুল কালাম প্রথমে এই শহরে হালুয়ার একটি দোকান দিয়ে ব্যবসা শুরু করেন। ব্যবসা ভালো হওয়ায় তিনি আস্তে আস্তে শহরের বিভিন্ন স্থানে আরো ৫/৬টি দোকান খোলেন। শহরে মজাদার হালুয়া তৈরিতে খ্যাতি পান আবুল কালাম। কিন্তু এটাই যেন কাল হয়ে দাঁড়ালো তাঁর জন্য। বছর তিনেক আগে স্থানীয় শহর কর্তৃপক্ষ আদেশ জারি করলো, এই ব্যবসা ওমানীরা ছাড়া কেউ করতে পারবে না। ব্যাস।

শেষ হয়ে গেলো আবুল কালামের হালুয়া ব্যবসা। এখন এই শহরে ৪০টি হলুয়ার দোকান। কিন্তু আবুল কালাম এখন কেবলই একজন দর্শক। সিভ শহরে আসার পর ঘটনাক্রমে আবুল কালামের সাথে পরিচয়। তাঁর হাতে গড়া একটি হালুয়ার দোকানে নিয়ে গিয়ে এই দুঃখের কাহিনী জানালেন। আবুল কালাম এখন সুপার মার্কেটের ব্যবসা করেন।